Download WordPress Themes, Happy Birthday Wishes
Home » খাবারদাবার » মাত্র ১০ মিনিটেই মচমচে জিলাপি বানিয়ে ফেলুন

মাত্র ১০ মিনিটেই মচমচে জিলাপি বানিয়ে ফেলুন

জিলাপি, বাঙ্গালীর প্রিয় মিষ্টি আইটেমের মধ্যে জনপ্রিয়। ইফতার তো এটি ছাড়া কি চলেই না। বাইরে থেকে না কেনে মজাদার এই খাবারটি মাত্র  ১০মিনিটে বাসায় তৈরি করে ফেলুন।

উপকরণ:
ব্যাটারের জন্য:
ময়দা- ১ কাপ
চালের গুঁড়া- ১ কাপ
বেসন- ১/২ কাপ
বেকিং পাউডার- এক চা চামচ।

সিরার জন্য:
চিনি- দেড় কাপ
পানি-১ কাপ
লেবুর রস- ১ চা চামচ।

ভাজার জন্য
তেল-পরিমাণমতো

প্রণালি

একটি হাঁড়িতে চিনি ও পানি মিশিয়ে বলক আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। ফুটে উঠলে আঙুলে নিয়ে দেখবেন, যদি চটচটে মনে হয় তবে চুলার জ্বাল বন্ধ করে দিন। এরপর সিরার মধ্যে এক চা চামচ লেবুর রস দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে দিন। এটি সিরাটিকে জমাট বাঁধতে দেবে না।

এবার একটি মিক্সিং বোলে শুকনো উপকরণগুলো ভালো করে মিশিয়ে নিন। এরপর এর মধ্যে অল্প অল্প করে পানি মেশান। ব্যাটার যেন খুব বেশি ঘন কিংবা পাতলা না হয়। সাধারণত আমরা বেগুনি বা চপ তৈরির সময় যেমন ব্যাটার ব্যবহার করি, জিলাপির ব্যাটারের ঘনত্ব তেমনই হবে।

একটি ফ্রাইপ্যান চুলায় বসান। এরপর এতে পরিমাণমতো তেল দিন। তেল একটু বেশি দেবেন যেন জিলাপি ডুবোতেলে ভাজা হয়। চেষ্টা করুন গোল কড়াই না নিয়ে ফ্রাইপ্যানে ভাজার। এর চওড়া আকৃতির কারণে জিলাপির আকার ঠিক থাকবে।

এতক্ষণে আশা করি তেল গরম হয়ে গেছে। এবার একটি সসের বোতল বা জিপলক ব্যাগে ব্যাটার ভরে নিয়ে তেলের ভেতর জিলাপির আকৃতিতে ছাড়ুন। সাধারণ পানির বোতলের মুখ ফুটো করেও আপনি জিলাপি তৈরি কাজে ব্যবহার করতে পারেন। জিলাপিগুলো মচমচে না হওয়া পর্যন্ত ভাজুন। ভাজা হয়ে গেলে আগে থেকে তৈরি করে রাখা সিরায় সঙ্গে সঙ্গে মিনিট খানেকের জন্য চুবিয়ে এরপর তুলে ফেলুন।

ও হ্যাঁ, খেয়াল রাখবেন, সিরা যেন খুব বেশি গরম কিংবা ঠান্ডা না থাকে। তাহলে কিন্তু জিলাপি খুব একটা রসালো হবে না। আঙুল ডুবিয়ে রাখা যায় সিরা এমন গরম রাখবেন। একে একে সবগুলো জিলাপি এভাবে ভেজে নিয়ে সিরায় চুবিয়ে তুলে রাখুন। এবার আরাম করে ইফতারে কিংবা যেকোন অনুষ্ঠানে পরিবেশন করুন আপনার হাতেই ঘরে তৈরি রসালো ও মচমচে জিলাপি। সবাইকে দিতে গিয়ে নিজে খেতে ভুলবেন না যেন!

Comments

comments

Leave a Reply

x

আপনার জন্য নির্বাচিত পোস্ট

https://lifestylecampus24.com/

গুড়া দুধেই ক্ষীর পাটিসাপটা

শীতকাল মানেই বাহারি সব পিঠার স্বাদ নেওয়া। শীতের বিভিন্ন পিঠার মধ্যে পাটিসাপটা অনেক জনপ্রিয়। যদিও ...

error: Content is protected !!